পুরোনোদের বেতন বাড়বে, ৯ হাজার কর্মী নিয়োগের করার ঘোষণা

0
51



নিউসান ডেস্ক:

এইচসিএল টেকনোলজিস লিমিটেড কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির কথা জানিয়েছেএইচসিএল টেকনোলজিস লিমিটেড কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির কথা জানিয়েছে
চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধে নয় হাজারের মতো নতুন কর্মী নিয়োগ দিচ্ছে ভারতের তথ্য প্রযুক্তির প্রতিষ্ঠান এইচসিএল টেকনোলজিস লিমিটেড। ই-৩ বা জুনিয়র লেবেলের কর্মীদের ১ অক্টোবর থেকেই বেতন বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ ছাড়া ই-৪ বা তার ওপরের পদের কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি আগামী বছরের ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হবে। কোভিড-১৯ কারণে কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি বিলম্বিত হয়েছে বলেও জানিয়েছে উত্তর প্রদেশের নয়ডাভিত্তিক এই বহুজাতিক কোম্পানিটি।

এইচসিএল টেকনোলজিসের প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সি বিজয়কুমার কোম্পানির জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের আর্থিক বিবরণ প্রকাশের দিন এসব ঘোষণা দেন। গত শুক্রবার এ ঘোষণার দেওয়ার সময় তিনি বলেন, কোম্পানির আয় ভালো। আর এটা আমাদের আগামীদিনের কাজের ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাস বাড়াবে।

লাইভ মিন্ট-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার এইচসিএল টেকনোলজিস জানিয়েছে, এ বছরের সেপ্টেম্বর কোয়ার্টারে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) তাদের মুনাফা হয়েছে ৩ হাজার ১৪২ কোটি রুপি। আর কাজের পরিধি বাড়ায় নতুন কর্মী নিয়োগের দিকে যাচ্ছে কোম্পানিটি।

২০২০-২১ অর্থ বর্ষে ১৫ হাজার নতুন কর্মী নিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা এইচসিএলের। তার কারণ হলো, এই পরিবেশে চাহিদা বেড়েছে এবং অনেক কাজ এখন পাইপলাইনে রয়েছে। ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এইচসিএল টেকনোলজিসের মোট কর্মী সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৫৩ হাজার ৮৫ জন। এ প্রতিষ্ঠান থেকে কাজ ছেড়ে চলে যাওয়ার প্রবণতা ১২ দশমিক ২ শতাংশ।

এইচসিএল গত বছর ভারতে কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি করেছিল গড়ে ৬ শতাংশ করে। এ ছাড়া বিদেশে কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির গড় ছিল ২ দশমিক ৫ শতাংশ। গত জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে এইচসিএলের নিট মুনাফা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৮ দশমিক ৫ শতাংশ বেড়ে ৩ হাজার ১৪২ কোটি রুপিতে দাঁড়িয়েছে। কোম্পানির মোট আয় গত প্রান্তিকের ১৭ হাজার ৮৪১ রুপি থেকে ৪ দশমিক ২ শতাংশ বেড়ে ১৮ হাজার ৫৯৪ কোটি রুপিতে দাঁড়িয়েছে।


সেপ্টেম্বরে শেষ হওয়া ত্রৈমাসিকের আয় বিবরণী প্রকাশ করতে গিয়ে এইচসিএল টেকনোলজিসের প্রধান মানবসম্পদ কর্মকর্তা ভিভি আপ্পারাও জানান, আশা করা হচ্ছে ডিসেম্বরের আগে বড় আকারের নিয়োগ করা হবে। যে সংখ্যাটা প্রথম দুটি ত্রৈমাসিকের তুলনায় অনেক বেশি। প্রথম ও দ্বিতীয় প্রান্তিকে আমরা তিন হাজার নতুন কর্মী নিয়োগ দিয়েছি। বাকি দুই প্রান্তিকে আমরা সাত থেকে নয় হাজার নতুন কর্মী নিয়োগের প্রত্যাশা রাখছি।

ভিভি আপ্পারাও বলেন, গত তিন মাসে ১ হাজার ৫৭৮ জনে চাকরি হয়েছে এইচসিএলে। এ ধারা ভবিষ্যতে রাখা হবে। তবে আমাদের চাকরি প্রক্রিয়া আপাতত বন্ধ রাখছি।

কারণ অনেক কলেজের পরীক্ষা এখনো শেষ হয়নি। পরীক্ষা শেষে নিয়োগ প্রক্রিয়া আবার শুরু হয়ে যাবে। তিনি আশা প্রকাশ করেন এ অর্থ বছরের শেষ নাগাদ আমরা ১২ হাজার কর্মীর নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করব।

এর আগে টাটা কনসালটেন্সি সার্ভিস (টিসিএস), ইনফোসিস এবং ইউপ্রো তাদের কোম্পানির কর্মীদের বেতন বাড়ানোর কথা জানায়।