হা করে ঘুমালে যে ক্ষতি হয়

7
266


নিউসান রিপোর্টার ॥ খুব সাধারণ একটি সমস্যা দাঁতে পাথর জমা। কমবেশি অনেকেই এই সমস্যায় ভোগেন। অধিকাংশ ক্ষেত্রে এটি নিজেদের অসচেতনতার কারণে হয়ে থাকে। অল্প কয়েকটি নিয়ম মেনে চললেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

এই বিষয়টি নিয়ে পাঠকদের সমাধান দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ডেন্টাল সার্জন ডা. আহসান হাবিব তানিন।

চলুন জেনে নিই দাঁতে পাথর জমার কারণ ও করণীয়-

দাঁতে খাবার ও ব্যাকটেরিয়া জমে প্রথমে প্লাগ তৈরি হয়। এই ডেন্টাল প্লাগ শক্ত হয় তাকে মেডিকেলের ভাষায় ক্যালকুলাস বলে।

দাঁতের পাথর বিভিন্ন কারণে জমে-

সাধারণত মানুষের মুখের মধ্যে যে লালা বা স্যালাইভা থেকেও এর উৎপত্তি। ঠিকমতো দাঁত পরিষ্কার না করলেও এটি জমে।

এছাড়া অনেকের কিছু দাঁতে সমস্যার কারণে খাবার গ্রহণের সময় সেগুলো ব্যবহার করেন না, এই কারণেও ওই দাঁতগুলোতে ক্যালকুলাস জমে।

অনেকের সামনের দাঁতের নিচের অংশে পাথর জমে। এক্ষেত্রে তার বদভ্যাস দায়ী। কারণ তিনি হয়তো হা করে ঘুমান। এই কারণে নিঃশ্বাস মুখ দিয়ে বের হয়, মুখের বাতাসে প্লাগ দ্রুত শুকিয়ে দেয়। ফলে ক্যালকুলাস বা পাথর হয়।

করণীয়:

নরম খাদ্য কণা, ডেন্টাল প্লাগ জমতে না দেয়া

সকালে ও রাতে দুই বেলা দুই মিনিট করে খাবারের পরে ব্রাশ করা। খাবার খাওয়ায় পর ব্রাশ করাটা বেশি জরুরি।

ফ্লোরাইড সমৃদ্ধ টুথপেস্ট ব্যবহার করতে হবে। এই টুথপেস্ট দাঁতের পাথর বা ক্যালকুলাস জমতে দেয় না।

ব্রাশের সঙ্গে সঙ্গে ডেন্টাল ফ্লগ ব্যবহার করা উচিৎ। ডেন্টাল ফ্লগ মেডিকেল স্বীকৃত এক ধরণের সুতা।

এছাড়া লবণ মিশ্রিত গরম পানি দিয়ে কুলি করতে পারি। দিনে দুই তিন বার এই পদ্ধতি অবলম্বন করা যেতে পারে।

খাবার খাওয়ার ক্ষেত্রেও সতর্ক হতে হবে। মিষ্টি জাতীয় খাবার কম খাওয়া উচিৎ হবে, খেলেও সঙ্গে সঙ্গে কুলকুল করতে হবে। এছাড়া আশজাতীয় খাবার বেশি বেশি খেতে হবে। পেয়ারা, আমড়া ইত্যাদি ফলমূল বেশি বেশি গ্রহণ করতে হবে। এরপরেও যদি দাঁতে পাথর জমে তাহলে ডেন্টিস্টের শরণাপন্ন হতে হবে