সোমবার থেকে কি সত্যিই শীত পরবে?

0
225

দিডেইলিনিউসান ডেস্ক:

কনকনে শীতের দাপটে যখন দেশজুড়ে কুয়াশাচ্ছন্ন আবহাওয়া থাকার কথা, তখন ফ্যান চালিয়ে ঘুমাতে যাওয়াটা নিঃসন্দেহে খুব ভালো লাগার নয়।

শীতের ভরা মৌসুমে ঠান্ডা হাওয়ার বদলে বইছে গরম বাতাস।ঢাকার আকাশে টনটনা রোদ। পৌষের শেষে শীত যেন হঠাৎ নাই হয়ে গেছে।

কিন্তু আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, আগামীকাল সোমবার থেকে তাপমাত্রা নাকি দ্রুত কমতে শুরু করবে।

মঙ্গলবারের মধ্যেই দেশের উত্তরাঞ্চল দিয়ে শৈত্যপ্রবাহ শুরু হবে এবং এটি দুই থেকে তিন দিন স্থায়ী হবে।

গত এক সপ্তাহ রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে আরব সাগর থেকে আসা জলীয় বাষ্পপূর্ণ উষ্ণ বায়ুকে চিহ্নিত করে এসেছেন আবহাওয়াবিদেরা।

আবহাওয়াবিদেরা বলছেন, জানুয়ারি মাসে এই উষ্ণ পশ্চিমা লঘুচাপ প্রায় ১০ দিন ধরে দেশের ভেতরে সক্রিয় থাকা অস্বাভাবিক।

সবচাইতে শীতল থাকার কথা যে জানুয়ারি মাস, তখন শীত বিদায় নেওয়ার মতো আবহাওয়া তৈরি হয়েছে। এর প্রধান কারণ আরব সাগর থেকে আসা মেঘমালা।

এই ব্যাপারে জানতে চাইলে আবহাওয়া অধিদপ্তরের একজন আবহাওয়াবিদ বলেন, সোমবার রাত থেকে তাপমাত্রা দ্রুত কমতে শুরু করতে পারে।

মঙ্গলবার থেকে উত্তরাঞ্চল দিয়ে শৈত্যপ্রবাহটি শুরু হতে পারে। তবে এটি খুব বেশি শক্তিশালী হবে না।

পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে চলতি মাসের শেষের দিকে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ আসতে পারে, বলছেন আবহাওয়াবিদেরা।

আবহাওয়াবিদেরা আরো সতর্ক করছেন, যে শৈত প্রবাহটি আসছে, সেটি বেশ কয়েক দিন স্থায়ী হতে পারে।

২০২০ সালের নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে শুরু হওয়া শীতকালে এখনো তীব্র শৈত্যপ্রবাহের মুখোমুখি হয়নি দেশ।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের হিসাব মতে, রবিবার দেশের সবচেয়ে কম তাপমাত্রা ছিল নওগাঁর বদলগাছিতে ১১ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

গতকাল রবিবার ঢাকার তাপমাত্রা নেমেছিল ১৮ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। সারা দেশে রাত ও দিনের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

নদী তীরবর্তী এলাকায় হালকা থেকে মাঝারি কুয়াশা পড়তে পারে।