সরিষাবাড়ীতে মাদকসেবীর হাতে দুই মুক্তিযোদ্ধা লাঞ্চিত

0
242


সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধিঃ
জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে হত্যা, ছিনতাই,ভাংচুর,মাদকসহ একাদিক মামলার আসামী মাদকসেবী সুমনের হাতে দুই মুক্তিযোদ্ধা ও এক আওয়ামী লীগ নেতা লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবনের সামনের মসজিদের রোডে এ ঘটনা ঘটে। মাদকসেবী সুমন পৌর এলাকার সাতপোয়া গ্রামের কুটু মিয়ার ছেলে বলে জানা যায়।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরে জামালপুর জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের সাবেক উপ-পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান লুলু ও উপজেলা আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ ইউএনও অফিসে কাজ শেষ করে ভ্যানগাড়ী যোগে আরামনগর বাজারে আসতেছিল। পথিমধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবনের সামনের মসজিদের রোডে বিপরীত থেকে আসা অটোবাইক ভ্যানগাড়ীকে ধাক্কা দেয়। এসময় মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান ও মোস্তাক আহমদে গুরুতর আহত হয়। অটোবাইক চালককে আহত হওয়ার কথা বলতে গেলে অটোবাইকের যাত্রী মাদকসেবী সুমন তাদের সাথে তর্কে লিপ্ত হয়। একপর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতাকে শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত করে। এ সময় পাশে থাকা পোগলদিঘা ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা মনির উদ্দিন তাদেরকে উদ্ধার করতে গেলে তাকেও শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত করে মাদকসেবী মাতাল সুমন। এসময় সরিষাবাড়ী থানায় খবর দিলে পুলিশ আসার আগেই সুমন পালিয়ে যায়।
জামালপুর জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের সাবেক উপ-পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান লুল জানান, উপজেলা পরিষদে কাজ শেষ করে ভ্যানগাড়ী যোগে ফেরার পথে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবনের সামনের মসজিদের রোডে অটোবাইক ভ্যানগাড়ীকে ধাক্কা দেয়। বিষয়টি চালককে বলতে গেলে অটোবাইকের যাত্রী ফুফু হত্যা মামলার আসামী মাদকসেবী সুমন অটোবাইক থেকে নেমে কিছু বুজায় আগেই আমাদের তিনজনের ওপর হামলা করে শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত করে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা করবেন বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে ঘটনার তদন্তকারী এস আই মো. আরিফুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাবার আগেই হত্যাসহ একাদিক মামলার আসামী মাদকসেবী সুমন পালিয়ে যায়। তাকে গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যহত আসে বলে তিনি জানান।