কালীগঞ্জে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন শক্তিশালী করতে ডর্‌প এর ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত

0
42

২৮ নভেম্বর ২০২৩: 
জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে তামাকমুক্ত করার প্রত্যয়ে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনকে সংশোধনের অঙ্গীকার করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন, ২০০৫ (২০১৩ সালে সংশোধিত) অধিকতর শক্তিশালীকরণের লক্ষ্যে খসড়া সংশোধনী প্রস্তুত করেছে।

এই প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর ২০২৩) বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন অব দ্য রুরাল পুয়র (ডরপ) গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় সুশীল সমাজ এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য “জনস্বাস্থ্য রক্ষায় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন শক্তিশালীকরণ এবং তামাকের কর ও মূল্য বৃদ্ধির দাবি” প্রকল্পটির ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম আয়োজন করে।

কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে প্রকল্পটির বিভিন্ন দিক সম্পর্কে তুলে ধরা হয়। অনুষ্ঠানের সংক্ষিপ্ত পরিসরে উপজেলায় প্রকল্পটির ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনার খসড়া প্রণয়ন করা হয়।

বিদ্যমান তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনকে শক্তিশালী এবং ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশান অন টোব্যাকো কন্ট্রোল (এফসিটিসি)-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ করার লক্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রণীত খসড়ায় যে বিষয়গুলো প্রস্তাব করা হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল-অধূমপায়ীদের সুরক্ষার জন্য সকল প্রকার পাবলিক প্লেস এবং পাবলিক পরিবহনে ধূমপানের জন্য নির্ধারিত স্থান বিলুপ্ত করা, তামাক পণ্যের প্রচার বন্ধ করার জন্য বিক্রয় কেন্দ্রে তামাক পণ্যের প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা, তামাক কোম্পানির সামাজিক দায়বদ্ধতা কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা, ই-সিগারেট বা ইমার্জিং হিটেড টোব্যাকো প্রডাক্ট আমদানি, উৎপাদন, ব্যবহার ও বাজারজাতকরণ নিষিদ্ধ করা, তামাক পণ্যের সকল প্রকার খুচরা ও খোলা বিক্রয় বন্ধ করা ও সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবার্তার আকার ৫০% থেকে বাড়িয়ে ৯০% করা।

অনুষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কালীগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি মো: আইয়ুব আলী। বিশেষ অতিথি কালীগঞ্জ উপজেলা এনজিও বিষয়ক প্রতিনিধি মোঃ কামরুল ইসলাম। ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন কালীগঞ্জ মা সংসদ স্পিকার জান্নাতুন বেগম।

জনাব মোঃ আব্দুস সালাম মিয়া, প্রোগ্রামস ম্যানেজার, ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিডস বাংলাদেশ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখার সময় বলেন, “এখনই সময় তামাকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করবার। তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন শক্তিশালী করতে আমাদের সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে কাজ করতে হবে।”
উল্লেখ্য, উক্ত অনুষ্ঠানে সুশীল সমাজের সদস্যগণ, গণমাধ্যমকর্মীবৃন্দ, ডরপ মা-সংসদ এবং যুব ফোরামের সদস্যবৃন্দ তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন শক্তিশালীকরন বিষয়ে স্বত:স্ফুর্ত আলোচনায় অংশ নেন এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে এটি পাশে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার আহবান জানান।

ডর্‌প বিগত ১৯৮৭ সাল থেকে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মসূচীর সাথে জড়িত এবং মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রবর্তনকারী সংস্থা হিসাবে সমধিক পরিচিত। এরই ধারাবাহিকতায় ডর্‌প বর্তমানে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন ও তামাক কর বৃদ্ধি বিষয়ে কাজ করছে এবং সরকারের টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।