কাজিপুরে কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজে নয়-ছয়; কর্মক্ষেত্রে নেই কাঙ্খিত শ্রমিক!

5
304


নিউসান নিউজ ডেস্ক:

সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার বারটি ইউনিয়নে এক যোগে শুরু হয়েছে কর্মসৃজন প্রকল্প। আর্থিকভাবে অসচ্ছল দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে কাজ দিয়ে আর্থিকভাবে সহায়তা করার লক্ষ্যেই এই প্রকল্পের শুরু করেছেন বাংলাদেশ সরকার। কিন্তু উপজেলার মনসুর নগর ইউনিয়নে দেখা গিয়েছে তার উল্টো চিত্র। এই প্রকল্পের কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠে সেখানে।

শনিবার (২১ নভেম্বর) সরেজমিনে এই প্রকল্পের বেশ কয়েকটি কর্ম এলাকা পরিদর্শন করে ওই অভিযোগের সত্যতার প্রমাণ পাওয়া যায়। সেখানে দেখা যায়, পূর্বমাজনা বাড়ি হোসেনের বাড়ি হতে ইমানের বাড়ি হয়ে সবুজ সুতারের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা সংস্কারের কাজের জন্য ৪৫ জন শ্রমিক বরাদ্দ থাকলেও সেখানে কাজ করানো হচ্ছে ১৩ জন শ্রমিককে দিয়ে, শালদহ ত্রাণের ব্রিজ হতে চর শালদহ রইচ উদ্দিনের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার ও ইউড্রেন নির্মাণ কাজের জন্য ৫৪ জন শ্রমিক বরাদ্দ থাকলেও কাজ করছেন ২৩ জন শ্রমিক এবং শালদহ ছাইদুরের বাড়ি হতে উত্তর বাউরামারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত রাস্তা সংস্কারের কাজের জন্য ৪৫ জন শ্রিমিকের জায়গায় কাজ করছেন মাত্র ১৪ জন শ্রমিক। শুধু তাই নয়, শ্রমিকেরা কর্ম ক্ষেত্রে আসছেন বেলা সাড়ে এগারোটার পরে। যে কয়জন শ্রমিককে কাজ করতে দেখা গিয়েছে তারা বেশিরভাগ সময়ই বসে বসে আলাপ গল্প করে অলস সময় পাড় করছেন।

স্থানীয়রা বলছেন, এখানে শ্রমিকদের দিয়ে নিয়মিত কাজ করানো হয় না। শ্রমিকরা কর্মস্থলে এসে বসে বসে সারাক্ষণ শুধু আলাপ গল্প করে। আর দেরিতে এসে আগেই চলে যায়।

এ ব্যাপারে মনসুর নগর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক ওরফে রাজমহর জানান, “বর্তমানে ধান কাটার কাজ চলছে তাই ২০০ টাকায় শ্রমিক পাওয়া যায় না। আমি এ ব্যাপারে পিআইও এর সাথে কথা বলেছি।”

কাজিপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) এ কে এম শাহা আলম মোল্লা জানান, “বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত। ওই চেয়ারম্যানকে বলে দেয়া হয়েছে শ্রমিক না পেলে কাজ বন্ধ করে দিতে।”